বিয়ানীবাজারে আগুনে পুড়লো ছাত্রশিবির নেতার বসত ঘর, ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের দাবি নাশকতা


admin প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ১৬, ২০২৩, ২:৪৯ পূর্বাহ্ন / ২৭৩
বিয়ানীবাজারে আগুনে পুড়লো ছাত্রশিবির নেতার বসত ঘর, ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের দাবি নাশকতা

বিয়ানীবাজার প্রতিনিধি ::  বিয়ানীবাজার উপজেলার লাউতা ইউনিয়নের আষ্টসাঙ্গন এলাকার ছাত্র শিবিরের রাজনীতির সাথে যুক্ত এক নেতার বসতঘর আগুনে পুড়ে গেছে। শুক্রবার (১৫ ডিসেম্বর) দিবাগত রাত ৩টার দিকে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে বিয়ানীবাজার ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণ করে। ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সদস্যদের অভিযোগ, এটি স্বাভাবিক কোন ঘটনা নয়। এটি নাশকতা।

স্থানীয়রা জানান, গ্রামে মখলিছুর রহমানের বসত ঘরে রাত অনুমান ৩টার দিকে আগুনে পুড়ে যাওয়ার গন্ধ পেয়ে পরিবারের সদস্যদের ঘুম ভাঙ্গে। এ সময় তাদের আত্ম চিৎকারে প্রতিবেশিরা এগিয়ে এসে আগুন নেভানোর চেষ্টা করেন। খবর পেয়ে বিয়ানীবাজার ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা এক ঘন্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণ করেন। রাত সাড়ে ৩টার দিকে বিয়ানীবাজার থানা পুলিশের সদস্য ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন।

স্থানীয় মহসিন উদ্দিন বলেন, যে সময় অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে সে সময় বিদ্যুৎ ছিল না। এ আগুনের ঘটনা স্বাভাবিক কোন ঘটনা নয় বলে মন্তব্য করেন তিনি। ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সদস্য আব্দুল মুকিত বলেন, রাতে পুড়া গন্ধ পেয়ে ঘুম ভাঙ্গে। দেখি সারা ঘর ধোয়ায় ভরে গেছে। আমি চিৎকারে করে সবাইকে ডেকে দ্রুত উঠোনে বেরিয়ে পড়ি। আমাদের চিৎকারে আশপাশের সবাই ছুটে আসেন। প্রায় পনের মিনিট পর ফায়ার সার্ভিস এসে আগুন নেভায়। তিনি বলেন, আমাদের ঘরের প্রায় সমস্ত মালামাল পুড়ে গেছে। আগুন কিভাবে লাগতে পারে জানতে চাইলে আব্দুল মুকিত বলেন, সে সময় বিদ্যুৎ ছিল না। আমরা ঘরের ভেতর মশার কয়েলও জ্বালাই না। তাই ধারণা করছি এটি উদ্দেশ্যমুলক নাশকতা। তিনি বলেন, আমার ভাই যুক্তরাজ্যে থাকে। সেখানে বর্তমান আওয়ামী লীগের সরকারের অবৈধ নির্বাচন বন্ধ ও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে বক্তব্য দেয়। এর জের ধরে স্থানীয় আওয়ামী সন্ত্রাসীরা রাতে আধারে আমাদের ঘরে আগুন দিয়েছে।

বিয়ানীবাজার ফায়ার সার্ভিসের ফায়ার লিডার মহরম আলী বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি আগুন ঘরের বাইরে থেকে লাগানো হয়েছে। বসত ঘরের পেছনের দিকটার দুইটি রুম আগুনে বেশি পুড়েছে। অগ্নিদুর্ঘটনার সময়ের আরো এক ঘন্টা আগে থেকে এ এলাকায় বিদ্যুৎ ছিল না। সেজন্য বিষয়টি আমাদের কাছে অস্বাভাবিক মনে হয়েছে। প্রকৃত বিষয়টি আমাদের তদন্ত প্রতিবেদনে উঠে আসবে।

বিয়ানীবাজার থানার ওসি দেবদুলাল ধর বলেন, ফায়ার সার্ভিসের তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর জানা যাবে কিভাবে আগুনের সুত্রপাত ঘটেছে। তিনি বলেন, ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের অভিযোগ এটি নাশকতা এ বিষয়টিও নিয়ে আমরা তদন্ত করবো।