ইনবক্সে ‘হাই হ্যালো’, তারপর কী


admin প্রকাশের সময় : মার্চ ১৫, ২০২৪, ৮:৪৫ অপরাহ্ন /
ইনবক্সে ‘হাই হ্যালো’, তারপর কী

ফেসবুকে অনেকেই অনেক কারণে অ্যাকাউন্ট খোলে। আমার এক বন্ধু ফেসবুকে অ্যাকাউন্ট খুলেছিল কেবল প্রেম করার উদ্দেশ্যে। আইডি খোলার পর ওর প্রথম কাজ ছিল মেয়েদের ইনবক্সে ‘হাই’ আর ‘হ্যালো’ পাঠানো। তারপর তেমন কোনো বার্তা ছাড়াই ‘ধর তক্তা মার পেরেক’ স্টাইলে প্রশ্ন করত, ‘তুমি কি সিঙ্গেল?’ বলাই বাহুল্য, আজ পর্যন্ত আমার সেই বন্ধু কোনো প্রেমের সম্পর্কে এগোতে পারেনি। পারবে কী করে? হাই হ্যালোর পর সে আর কথা আগাতে পারে না। আর ‘কোনো এক অদ্ভুত কারণে’ মেয়েরা সাধারণত ওকে ব্লক করে দেয়। আজকের লেখাটা সেসব ‘অভাগা’ তরুণ–তরুণীর জন্য, হাই হ্যালোর পর যাঁরা কথা খুঁজে পান না বা ‘ভুলভাল’ কথা বলে ফেলে অনির্দিষ্টকালের জন্য ‘প্রেমহীনতার সশ্রম কারাদণ্ড’ ভোগ করেন। চলুন জেনে নিই, হাই বা হ্যালোর পর কীভাবে কথা আগাবেন?

হাই হ্যালোর পর অনেকেই আর কথা খুঁজে পান না (প্রতীকী ছবি)
হাই হ্যালোর পর অনেকেই আর কথা খুঁজে পান না (প্রতীকী ছবি)ছবি: প্রথম আলো

প্রত্যেক মানুষই নিজের আগ্রহের বিষয়ে কথা বলতে পছন্দ করে। কাজেই হাই বা হ্যালোর পর তার আগ্রহের কোনো একটা বিষয় নিয়ে সুন্দর প্রশ্ন করুন
প্রত্যেক মানুষই নিজের আগ্রহের বিষয়ে কথা বলতে পছন্দ করে। কাজেই হাই বা হ্যালোর পর তার আগ্রহের কোনো একটা বিষয় নিয়ে সুন্দর প্রশ্ন করুনছবি: পেক্সেলস ডটকম

আগ্রহের বিষয়ে জানতে চান

প্রত্যেক মানুষই নিজের আগ্রহের বিষয়ে কথা বলতে পছন্দ করে। কাজেই হাই বা হ্যালোর পর তার আগ্রহের কোনো একটা বিষয় নিয়ে সুন্দর প্রশ্ন করুন। আগ্রহের বিষয় জানা আজকাল কষ্টকর কিছু না। মিনিট দশেক প্রোফাইল স্ক্রল করলেই হয়। খেলা নিয়ে আগ্রহ থাকলে খেলার কথা বলুন। সিনেমা নিয়ে যদি টাইমলাইনে বেশি কথাবার্তা দেখেন, নিজের কোনো একটা পছন্দের সিনেমা দেখার অনুভূতি জানিয়ে তাঁর কাছেও একই অভিজ্ঞতা জানতে চান। জরুরি হলো, কারও সঙ্গে কথাবার্তা আগানোর আগে তাঁর প্রোফাইল ‘স্টাডি’ করা। তাঁর সম্পর্কে যতটা সম্ভব জেনে নেওয়া। মনে রাখবেন, একেকটা ভালো প্রশ্ন আপনাকে অন্যদের থেকে আলাদা করে ফেলবে।

পোশাকের প্রশংসা এবং প্রশ্ন

নারী–পুরুষ নির্বিশেষে সবাই তাঁদের রুচি আর ব্যক্তিত্বের প্রশংসা ভালোবাসে। মেয়েরা সাধারণত তাঁদের পোশাকের ব্যাপারে শৌখিন হয়ে থাকেন। কাজেই শুরুতেই তাঁর পোশাকের প্রশংসা করুন। এরপর পোশাকটা তিনি কোথা থেকে কিনেছেন, সেটি জানতে চান। সেখান থেকেই কথোপকথন দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হতেই পারে। ফ্যাশন, বিউটি, লাইফস্টাইল—এ রকম বিষয়ে নির্দিষ্ট করে জানতে চান।

মনে করিয়ে দিন চোখ বা হাসির বিশেষত্ব

প্রত্যেক মানুষই নিজেকে সবচেয়ে বেশি পছন্দ করে। তবে ‘আপনি দেখতে সুন্দর’ বা ‘আপনার চেহারা অসাধারণ’ ধরনের প্রশংসা বাক্য অত বেশি কার্যকর হয় না! বরং চোখ বা হাসির প্রশংসা করলে সেই প্রশংসাকে মানুষ সত্য হিসেবে ধরে নেয়। প্রভাবিতও হয়।

কোনো বিষয়ে তার মতামত জানতে চান

সচরাচর আমরা কাদের থেকে পরামর্শ নিই? যারা আমাদের কাছে আলাদা একটা গুরুত্ব বহন করে। কাজেই ভাইরাল কোনো বিষয় নিয়ে দেশজুড়ে ঝড় বয়ে যাচ্ছে? আপনি তার কাছে মতামত জানতে চান। তাহলে সে যে আপনার কাছে স্পেশাল, এই বার্তাটা অপরপক্ষ স্পষ্ট পেয়ে যাবে।

পছন্দের বই নিয়ে কথা বলা

বই সবাই পড়ে না, এটা সত্য। তার পরও বেশির ভাগ মানুষেরই কোনো না কোনো প্রিয় বই থাকে। সেই বই ঘিরে থাকে বিশেষ একটা আবেগের জায়গাও। এই আবেগের জায়গাতে ঠিকঠাক আঘাত করতে পারলে কথা আগাবেই।

সাহায্য চান

না, তাই বলে আবার ওপারের মানুষটার কাছে টাকাপয়সার সাহায্য চেয়ে বসবেন না যেন। আপনি বরং তাঁর সৃষ্টিশীল গুণের সাহায্য চান। ফ্যাশন নিয়ে তার ভালো ধারণা থাকলে কাপড়চোপড় কেনার ক্ষেত্রে পরামর্শ চান। সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে পরামর্শ চান।

সুন্দর একটা কথোপকথন শুধু প্রেমের ক্ষেত্রেই না, বরং ভালো একটা বন্ধুত্ব গড়ার জন্যও অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। কাজেই ‘হাই হ্যালো’তেই যেন আপনার কথোপকথন থেমে না যায়, সেদিকে লক্ষ রাখুন।

তথ্যসূত্র: উইকি হাউ